বুধবার, ২৩ জুন ২০২১, ১১:৫৪ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন “হাসি”র উদ্যোগে বৃক্ষরোপন কর্মসূচি রক্তাক্ত আমাদের আবেগ অনুভূতিঃ মাধবদীতে মেয়র গ্রুপের হামলায় ছাত্রলীগ সভাপতি ও সাবেক কাউন্সিলর জাকারিয়া গুলিবিদ্ধ ফরম সংগ্রহ করেছেন নরসিংদী সরকারি কলেজ ছাত্রদলের আহবায়ক প্রার্থী মেহেদি ঢাকা-১৪ আসনের উপনির্বাচনে মনোনয়ন দৌড়ে এস.এম মান্নান কচি! জেলা পুলিশের কর্মসম্পাদন চুক্তি স্বাক্ষরিত ,নরসিংদী একসঙ্গে কোরআনে হাফেজ হলেন 4 জন ফিলিস্তিনি জমজ বোন বেপরোয়া কিশোর গ্যাং : তিন বছরে খুন অর্ধ শতাধিক চরদিঘলদীতে দিবা-রাত্রী শর্টপিচ ক্রিকেট টুর্নামেন্টেরর ফাইনাল অনুষ্ঠিত নরসিংদীর সর্বস্তরের জনগণকে ঈদ শুভেচ্ছা জানিয়েছে এমপি বুবলী

চরদিঘলদী ইউপি আ. লীগের সাধারণ সম্পাদকের বাড়িতে ককটেল বিস্ফোরণ : ভাঙচুর ও লুটপাট

নিজস্ব প্রতিবেদক / ৯৪৩ শেয়ার
প্রকাশিত : মঙ্গলবার, ১৯ জানুয়ারী, ২০২১

নিজস্ব প্রতিবেদক:
নরসিংদীর চরদিঘলদী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের বাড়িতে ককটেল ও টেডা হামলা। জানা যায়,নরসিংদী সদর উপজেলার মাধবদী থানার চরদিঘলদী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আবু মনসুর সরকারের নির্দেশে এমন রক্তক্ষয়ী টেডা যুদ্ধ ও ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা সংগঠিত হয় বলে অভিযোগ করেন স্থানীয় কিছু লোকজন।

আজ সরজমিনে ঘটনাস্থল পরিদর্শনে গেলে প্রত্যক্ষদর্শী ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায় গত ১৭ জানুয়ারি দুপুর আনুমানিক সাড়ে বারোটা থেকে একটার দিকে চরদিঘলদী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবু মনসুর সরকারের নির্দেশে চেয়ারম্যানের ২ ছেলে শামীম ও মনির , সন্ত্রাসী ইকবাল, নাজিম উদ্দিন ও জামাল ডাকাত দলের নেতৃত্বে একাধিক গ্রুপে বিভক্ত হয়ে হঠাৎ করেই চরদিঘলদী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শওকত আলী প্রধানের বাড়িতে আক্রমণ শুরু করে ওনার বাড়িতে একাধিক ককটেল বিস্ফোরণ ঘটায় এবং ভাঙচুর ও ব্যাপক লুটপাট করে।

বিল্ডিংয়ের দেয়ালের বিভিন্ন স্থানে ককটেল বিস্ফোরণের চিহ্ন দেখা যায়।

জানা যায়,শওকত আলী প্রধান প্রাণভয়ে চরদিঘলদী থেকে পার্শ্ববর্তী গ্রাম দোয়ানীতে আশ্রয় নেয়। চেয়ারম্যানের আরেকটি গ্রুপ গ্রামের প্রবাসী নাসির উদ্দিনের বাড়িতে আক্রমণ করে একাধিক ককটেল বিস্ফোরণ ঘটায় এবং ব্যাপক ভাঙচুর ও লুটপাট করে। পরবর্তীতে চেয়ারম্যানের গ্রুপের লোকজন চরদিঘলদী গ্রামে বিভিন্ন বাড়িঘর ভাঙচুর করতে থাকে। গত ইউপি নির্বাচনে আবু মুনসুর সরকারের প্রতিদ্বন্দ্বী চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী আব্দুল জলিলের বাড়িতে ককটেল বিস্ফোরণ ঘটিয়ে ভাঙচুর ও লুটপাট করে ।

বিলাত আলী ও জজ মিয়া নামে দুই ব্যক্তির বাড়িতে ককটেল বিস্ফোরণ ঘটায় ও টেডা বল্লম নিয়ে আক্রমণ করে ব্যাপক ভাঙচুর ও লুটপাট করে।সেখানে ককটেলের আঘাতে আলী হোসেন ও শহিদ মিয়া নামে দুজন লোক রক্তাক্ত জখম হয় বলে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়।

এরপর সঙ্গবদ্ধ দলটি চরদিঘলদী বাজারে প্রবেশ করে বিভিন্ন দোকানপাট ভাঙচুর ও লুটপাট করে। তৌহিদ নামে চরদিঘলদী বাজারের একজন ব্যবসায়ী জানান, চেয়ারম্যানের লোকজন তার দোকানপাট ভাঙচুর ও লুটপাট করে এবং বাজারের বিভিন্ন স্থানে ককটেল বিস্ফোরণ ঘটায়। চরদিঘলদী বাজারে আজগর আলীর দোকানপাট ভাঙচুর ও লুটপাট করেছে বলে আজগর আলী নামে একজন জানান।

পরবর্তীতে চেয়ারম্যানের লোকজন ককটেল বিস্ফোরণ ঘটাতে ঘটাতে দোয়ানী বাজারে প্রবেশ করে আবু কালাম ও শুকুর আলীর দোকানপাট সহ বাজারের অন্যান্য দোকানে ভাঙচুর ও লুটপাট করে। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায় তারা চরদিঘলদী ইউনিয়ন উচ্চ বিদ্যালয়ের ভবনের দেয়ালে ককটেল বিস্ফোরণ ঘটায় যার চিহ্ন এখনো আছে।

অপরদিকে চেয়ারম্যানের আরেকটি গ্রুপ অনন্তরামপুর এর দিক থেকে এসে নোয়াবপুর ও নোয়াকান্দি গ্রামে আক্রমণ করে ককটেল বিস্ফোরণ ঘটায়। ৬ নং ওয়ার্ডের সাবেক মেম্বার মুর্শিদ মিয়ার বাড়িঘর সহ অন্যান্য বাড়িঘর ব্যাপক ভাঙচুর ও লুটপাট করে ককটেল বিস্ফোরণ ঘটাতে থাকে। দুই গ্রুপ দুই দিক থেকে দোয়ানী গ্রামের দিকে এগিয়ে আসতে থাকলে শওকত গ্রুপের লোকজন এলাকার সাধারণ জনগণকে সঙ্গে নিয়ে চেয়ারম্যানের লোকজনকে ধাওয়া দিলে টেটা যুদ্ধ সংঘটিত হয়।

সেখানে চেয়ারম্যান গ্রুপের কয়েকজন টেঁটাবিদ্ধসহ শওকত গ্রুপের লোকজনও আহত হয়। এক পর্যায়ে চেয়ারম্যানের গ্রুপের লোকজন পালিয়ে যেতে বাধ্য হয়। তার পর বিক্ষুব্ধ জনতা চেয়ারম্যানের বাড়িঘর ভাঙচুর সহ আরো অনেকের বাড়িঘর ভাঙচুর করে। চরদিঘলদী ও দোয়ানি বাজারের বিভিন্ন ব্যবসায়ী ও সাধারণ জনগণ জানায় ,চেয়ারম্যানের গ্রুপের লোকজন যে ঘটনা ঘটিয়েছে তা অতীতে কোনদিন ঘটেনি। তারা উভয় বাজারে ব্যাপক ভাঙচুর করেছে। এলাকাবাসীর সাথে গোপনে কথা বলে জানা যায় গত ১৬ তারিখ ভূঁইয়া মোহাম্মদ রেজাউর রহমান সিদ্দিকী, স্থানীয় সরকার উপ-পরিচালক (উপসচিব) নরসিংদী চরদিঘলদী ইউনিয়ন পরিষদের উন্নয়ন কর্মকান্ড পরিদর্শনে আসলে চেয়ারম্যানের উপস্থিতিতে শওকত আলীর ছেলে আজগর আলী , মাধবদী থানা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ও দোয়ানি বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি দেলোয়ার হোসেন শাহীন, চরদিঘলদী ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি ফকরুজ্জামান সরকার, চরদিঘলদী বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সেক্রেটারি শওকত আলী দোয়ানী বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সেক্রেটারি জালালউদ্দিন জালুও অন্যান্য নেতৃবৃন্দ চেয়ারম্যানের উন্নয়ন কর্মকাণ্ডের ব্যাপারে কিছু সুনির্দিষ্ট অভিযোগ তুলে ধরেন যাতে করে চেয়ারম্যান লজ্জিত ও বিব্রত হন। মূলত এই বিষয়কে কেন্দ্র করেই পরের দিন ১৭ তারিখ পূর্ব থেকেই বিবাদে জড়িয়ে থাকা দু’টি গ্রুপের একটি গ্রুপের নেতৃত্বে থাকা ইকবাল গ্রুপ কে সাথে নিয়ে চেয়ারম্যান এই ঘটনা ঘটায়।

মাধবদী থানার অফিসার ইনচার্জ সৈয়দুজ্জামান জানান এ বিষয়ে তিনি অবগত আছেন এবং এলাকায় পুলিশ পাঠিয়েছেন বর্তমানে পরিস্থিতি পুলিশ প্রশাসনের নিয়ন্ত্রণে আছে।


এ সম্পর্কিত আরো সংবাদ
Developed by BongshaiIT.com
ব্রেকিং নিউজ
ব্রেকিং নিউজ