বৃহস্পতিবার, ২২ এপ্রিল ২০২১, ০২:৫৯ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
এপিবি নিউজ টিভির চেয়ারম্যানের দায়িত্বে শিল্পপতি নুরুল হক দরিদ্র মেধাবী শিক্ষার্থীর দায়িত্ব নিল ছাত্রলীগ নেতা রিমন ছাত্রদল হল অছাত্র ও গুন্ডাদের সংগঠন : আল নাহিয়ান দেবিদ্বার পৌর নির্বাচনে নৌকার প্রচারণায় মানুষের দ্বারে দ্বারে ছাত্রলীগ সভাপতি বিডিআর হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় বিএনপি জামায়াতের বিরুদ্ধে যে নির্ভরযোগ্য ও বস্তুনিষ্ঠ তথ্যপ্রমাণ শাহরাস্তি ছাত্রদলের কমিটিতে আহবায়ক চাকরিজীবী সদস্য সচিব ধর্ষক যুবলীগ চেয়ারম্যানের সুস্থতা কামনায় দোয়া ও মিলাদ মাহফিল নির্বাচনি আচরণবিধি ভাঙ্গল জয়-লেখক মুদি দোকানের কর্মচারী থেকে কোটি টাকার মালিক! চরদিঘলদী ইউপি আ. লীগের সাধারণ সম্পাদকের বাড়িতে ককটেল বিস্ফোরণ : ভাঙচুর ও লুটপাট

শাহরাস্তি ছাত্রদলের কমিটিতে আহবায়ক চাকরিজীবী সদস্য সচিব ধর্ষক

নিজস্ব প্রতিবেদক / ১৬১ শেয়ার
প্রকাশিত : বৃহস্পতিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী, ২০২১

গতকাল চাঁদপুর জেলার শাহরাস্তি উপজেলা শাখা ছাত্রদলের প্রস্তাবিত আহবায়ক কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে। ২১ সদস্য বিশিষ্ট প্রস্তাবিত এই কমিটিতে আবুল বাশার পলাশ কে আহবায়ক ঘোষনা করা হয়। যিনি বর্তমানে চট্রগ্রামে একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে কর্মরত রয়েছেন। এমন ব্যক্তিকে কমিটিতে পদায়িত করা ছাত্রদলের গঠনতন্ত্রের সাথে সাংঘর্ষিক।
অপরদিকে সদস্য সচিব করা হয়েছে, আজগর হোসেন মিয়াজিকে যিনি পরকিয়ার দায়ে শালিসি বিচারে দন্ডপ্রাপ্ত বলে উল্লেখ করেছেন সূচিপাড়া কলেজ ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি মোঃ মিজানুর রহমান।

এছাড়াও ঘোষিত এই কমিটির অনেকের সাথে কথা বলে জানা যায়, এই কমিটি কে বা কারা ঘোষণা করেছে এব্যাপারে তারা জানেন না।
কমিটির প্যাডে জেলা ছাত্রদলের সভাপতি-সম্পাদকের সাক্ষর নেই। এমনকি কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের সভাপতি-সম্পাদকেরও সাক্ষর নেই। কমিটির প্যাডে লেখা দপ্তর কর্তৃক প্রকাশিত।
সভাপতি-সম্পাদক সাক্ষর বিহিন কমিটি এই প্রথম কোন সংগঠনের কমিটি ঘোষনা করা হল।

জানা যায়, গত জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপি থেকে মনোনিত প্রার্থী ইঞ্জিনিয়ার মুমিনুল হক তার একক আধিপত্য বিস্তারে কেন্দ্রীয় ছাত্রদল থেকে দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতাদের পকেট ভারি করে এই উদ্ভট কমিটি নিজের করে নিয়েছে বলে স্থানীয় বিএনপি নেতারা জানান।

স্থানীয় বিএনপির এক নেতা জানান, আজগর আলী যে চাচীর সাথে অবৈধ সম্পর্কে লিপ্ত হয়ে ধরা খেয়েছে। যার বিচারও হয়েছে। বিচারে তাকে জুতার মালা দিয়ে ঘুরানো হয়েছে। এসব কারো অজানা নয়। তার মত একটা ছেলেকে ছাত্রদলের কোনো কমিটিতে রাখার মানে হচ্ছে, দলকে ধ্বংশ করে ফেলা। ফেসবুকে সে স্ট্যাটাস দিয়েছে, সে নাকি উপজেলা ছাত্রদলের সদস্য সচিব করা হয়েছে।

সূচিপাড়া কলেজ ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি মিজান বলেন, শুনেছি ছাত্রদলের কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে। এতে আজগরকে সদস্য সচিব করা হয়েছে। সে গ্রাম্য সালিশে দন্ডপ্রাপ্ত আসামী, সর্বজন ঘোষিত ধর্ষক। আমি নিজেও সেই বিচারে উপস্থিত ছিলাম। সালিশে বিচারক তাকে জুতার মালা পরানোর রায় দিলে কয়েকজনের সাথে আমি নিজেও সেই জুতার মালা পরিয়েছি। সেই ছেলেকে ছাত্রদলের সদস্য সচিব বানাতে হয়, তার মানে হচ্ছে শাহরাস্তিতে ছাত্রদল আর নেই। চাচীর সাথে অবৈধ পরকিয়ার আসামীকে ছাত্রদলের সদস্য সচিব বানিয়ে প্রমাণ হল, ছাত্রদল ধর্ষকদের সংগঠন। ভালো মানুষ এই দল করে না। ‘

তিনি আরো বলেন, ‘সে যে চাচীর সাথে পরকিয়ার আসামী সেটা জানে না, শাহরাস্তির এমন কেউ বাকি নেই। তার বিচারের দিন কয়েক’শ মানুষ উপস্থিত ছিল। তার বাবা, মা, ভাই সবাই সেদিন স্ট্যাম্পে সাক্ষর দিয়েছিল। সেদিন বিচারকার্য পরিচালনা করেন আবুল কাশেম বেপারী, কাদের মেম্বার সহ আরো এলাকার গণ্যমাণ্য ব্যক্তির উপস্থিতিতে বিচার হয় এবং বিচারে তাকে জুতার মালা পড়িয়ে পাথৈর গ্রাম ও খিলা বাজার ঘুরানো হয়। আর ঐ মহিলাকে ৫০ টি জুতার বারি দেওয়া হয়। আর কোনো ছেলে পাইনি কমিটি দেয়ার জন্য?

স্থানীয় এক বিএনপি নেতা বলেন, বিএনপিতে কি লোকের এতই অভাব পড়েছে যে, ধর্ষককে এনে সেক্রেটারী বানাতে হবে? আসলে এসব মমিন ইঞ্জিনিয়ারের কাজ। সে সবত্র বলে বেড়ায়, সে টাকা দিয়ে লন্ডন থেকে কমিটি আনতে পারে। ৩ দিন আগে এক ঘরোয়া আলোচনায় সে বলেছে, টাকা দিলেই যদি কমিটি আসে, তাহলে আর রিস্ক নেয়ার দরকার কি? এখন থেকে সে নাকি টাকা দিবে কমিটি নিবে। তাছাড়া লন্ডনে তার লোক আছে। কেন্দ্রীয় বিএনপির একনেতা লন্ডনে থাকেন, তিনি সব ব্যবস্থা করে দিবেন শুনতে পেরেছি।

তিনি আরো বলেন, মমিন ইঞ্জিনিয়ার নিজের শেখ মজিবের আদর্শের লোক। অতএব সে বিএনপিকে ধ্বংশ করার মিশনে নেমেছে। তাই বিএনপির সভাপতি বানিয়েছে ঢাকার ব্যবসায়ী, যুবদলে বানিয়েছে চেকের মামলার আসামী। এবার ছাত্রদলের চাকরীজীবি আর ধর্ষক। শাহরাস্তি- হাজীগঞ্জে বিএনপি ধ্বংশের জন্য মমিন ইঞ্জিনিয়ারের বিকল্প আর কারো দরকার নেই।

এ বিষয়ে চাঁদপুর ছাত্রদলের সাংগঠনিক দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতা কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের যুগ্ন-সাধারণ সম্পাদক,জাকির হাসান জেলা ছাত্রদলের সভাপতি-সম্পাদকের সাইন বিহিন কমিটি নিয়ে বলেন, সম্পূর্ণ গঠনতন্ত্র মেনে কমিটি দেয়া হয়েছে।ইতিপূর্বে দপ্তর সেল থেকে প্রকাশিত হয়েছে আরো ৫ টি কমিটি। কমিটির আহবায়কের চাকরির বিষয়ে বলেন,এটা তাদের পারিবারিক ব্যবসা। সে চাকরি করেনা।
সদস্য সচিবের ধর্ষণের ঘটনায় তিনি বলেন, এটা ৫ বছর আগের ঘটনা। তখন তিনি একটি সাংগঠনিক ইউনিটের সভাপতি ছিল, তখন তার বিরুদ্ধে কোন জেলা কিংবা কেন্দ্রীয় ছাত্রদল কোন ধরনের সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়নি। তাছাড়া আমি যতটুকু শুনেছি সেটা ষড়যন্ত্রমূলক ছিল, যা স্থানীয় সালিশির মাধ্যমে শেষ হয়।

কমিটি নিয়ে স্থানীয় বিএনপি নেতাকর্মী ও সমর্থকদের মধ্যে তীব্র সমালোচনা হচ্ছে তারা কমিটি প্রত্যাখান করেছে।


এ সম্পর্কিত আরো সংবাদ
Developed by BongshaiIT.com
ব্রেকিং নিউজ
ব্রেকিং নিউজ